1. [email protected] : Dhaka Mail 24 : Dhaka Mail 24
  2. [email protected] : unikbd :
শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১০:১৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
বেনাপোলে ‘বন্ধন এক্সপ্রেস’ ট্রেনে প্রশাসনের যৌথ অভিযান উদোর পিন্ডি বুদোর ঘাড়ে! গোপন লেনদেন করে ছাড় পেল গরু চোর গাজীপুরে ট্রাকের চাপায় শিশু শিক্ষার্থী রনি নিহত বেনাপোলে স্বর্ণ উদ্ধারে ব্যর্থ হয়ে ফেনসিডিল দিয়ে মামলা দেওয়ার অভিযোগ গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের রাস্তার কাজ পন্ড করলো প্রশাসন শার্শার বাগআঁচড়ার তিনটি ডাক্তারের চেম্বার বন্ধের নির্দেশনা দিলেও খোলা রয়েছে প্রতিষ্টানগুলো বেনাপোলে রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় উদোর পিন্ডি বুদোর ঘাড়ে বেনাপোল প্রতিনিধিঃ বেনাপোলে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে সাবেক মেম্বার ও বেনাপোল পৌর সভার কাউন্সিলর পদপ্রার্থী সুলতান আহমেদ বাবু তরুন আওয়ামী নেতা কামাল হোসেনকে ঘিরে দৈনিক প্রতিদিনের কথা নামে একটি পত্রিকায় মিথ্যা বানোয়াট ও ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সুলতান আহমেদ বাবু একজন সামাজিক ও রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্ব। তার এলাকায় যথেষ্ট সুনাম রয়েছে। ইতিমধ্যে সে ফেনসিডিল ও গাজা ব্যবসায়িদের আটক করে নিজ দায়িত্বে বিজিবির কাছে হস্তান্তর করেছে। তাকে ও কামাল এবং জামাল কে জড়িয়ে স্বর্ণ চোরাচালানের মত ঘটনার সাথে জড়িত করায় এলাকায় ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। এলাকার সাধারন জনগন বলেন বাবু এবং কামাল বেনাপোল পৌরসভার আলাদা আলাদা ওয়র্ডের দুই জন জনপ্রিয় কাউন্সিলার পদপ্রার্থী হিসাবে ইতিমধ্যে আলোচিত হয়েছে। তাদের উভয়ের নিকটতম কোন প্রার্থী নেই বলেও তেমন কোন প্রচার প্রচারণা নেই। এসব দেখে এক শ্রেণীর স্বার্থম্বেষী মহল মিথ্যা বানোয়াট তথ্য প্রদান করে সমাজে তাদের হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য এরকম সংবাদ প্রকাশ করেছে। সাধারন জনগনের দাবি স্বাধীন সার্বোভৌম দেশে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ না করে সত্য সংবাদ প্রকাশ করলে তাতে পত্রিকার মান ও বৃদ্ধি পায়। বেনাপোলে এওয়ারনেস সেশন অন স্কুল হাইজিন এডুকেশন প্রোগ্রাম আয়োজন পার রামরামপুরের চেয়ারম্যান সেলিম ফের কারাগারে গোপালপুরে ব্যারিষ্টার পল্লব আর্চাযের সঙ্গে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের মত  বিনিময় 

সাজেদা ছিলেন আ,লীগের দুর্দিনের কান্ডারি

  • প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ১২৩ বার পঠিত

এম. রানা: সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী ছিলেন বাংলাদেশের একজন বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য ও জাতীয় সংসদের উপনেতা ছিলেন। সাজেদা পরিবেশ ও বনমন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৭৪ সালে গ্রামীণ উন্নয়ন ও শিক্ষায় বিশেষ অবদানের রাখায় ইউনেস্কো ফেলোশিপ প্রাপ্ত হন এবং একই সময়ে তিনি বাংলাদেশ গার্ল-গাইড এসোসিয়শনের জাতীয় কমিশনার হিসেবে সর্বোচ্চ সম্মানসূচক সনদ সিলভার এলিফ্যান্ট পদক লাভ করেন সাজেদা চৌধুরী।

তিনি ২০০০ সালে আমেরিকান বায়োগ্রাফিক্যাল ইনস্টিটিউট কর্তৃক বর্ষসেরা নারী নির্বাচিত হন। ২০১০ সালে বাংলাদেশ সরকার তাকে স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত করেন।

সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী ১৯৩৫ সালের ৮ মে মাগুরা জেলায় মামার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম সৈয়দ শাহ হামিদ উল্লাহ এবং মাতা সৈয়দা আছিয়া খাতুন। শিক্ষাজীবনে তিনি স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। তাঁর স্বামী গোলাম আকবর চৌধুরীও একজন রাজনীতিবিদ এবং সমাজ সংস্কারক ছিলেন। ২০১৫ সালের ২৩ নভেম্বর তার স্বামী মৃত্যুবরণ করেন। তাঁদের রয়েছে তিন ছেলে ও এক মেয়ে।

১৯৫৬ সাল থেকে সাজেদা চৌধুরী আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ১৯৬৯-১৯৭৫ সময়কালে তিনি বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ১৯৭০-এর নির্বাচনে তিনি পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭৩ সালে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সংসদ নির্বাচনেও তিনি জয়লাভ করেন।

১৯৭১ সালে তিনি মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে তিনি কলকাতা গোবরা নার্সিং ক্যাম্পের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ছিলেন। ১৯৭২-১৯৭৫ সময়কালে তিনি বাংলাদেশ নারী পুনর্বাসন বোর্ডের পরিচালক, ১৯৭২-১৯৭৬ সময়কালে বাংলাদেশ গার্ল গাইডের জাতীয় কমিশনার ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকা-ের পর ১৯৭৬ সালে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন সাজেদা।

১৯৯০-এর স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। ১৯৯১ সালে তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

১৯৮৬ থেকে ১৯৯২ সাল পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, ১৯৯২ সাল থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক প্রদত্ত পার্বত্য চট্রগ্রাম শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়কের দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

১৯৯৬ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীকে টেকনোক্যাট কোটায় বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ে মন্ত্রী নিযুক্ত করা হয়।

২০০৮ সালের সংসদ নির্বাচনে, তিনি ফরিদপুর (ফরিদপুর-২) নগরকান্দা, সালথা ও সদরপুরের কৃষ্ণপুর ইউনিয়ন) থেকে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন। দশম ও একাদশ সাধারণ নির্বাচনেও তিনি এ জেলা থেকেই আবারো নির্বাচিত হন। ২০০৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে তিনি জাতীয় সংসদের উপনেতা হন। এরপর ২০১৪ ও ২০১৮ সালেও তিনি একই পদ অলংকৃত করেন।

২০০৮ সালের ১০ই জুলাই দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) সাজেদা চৌধুরীর বিরুদ্ধে অবৈধভাবে ১৩ লাখ ৭৫ হাজার টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ দাখিল করে। তবে ওই মামলা থেকে মুক্তি পান।

তিনি দুর্নীতির এ অভিযোগ অস্বীকার করেন। ২০০৮ সালের ১৮ই নভেম্বর বাংলাদেশ হাইকোর্ট মামলাটি স্থগিত করে, পরবর্তীতে ২০১০ সালের ১৫ই ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টে আবারও মামলাটি উজ্জীবিত হয়। হাইকোর্ট তাঁকে জামিন দেন। ২০১০ সালের ২৯শে নভেম্বর হাইকোর্ট মামলায় চৌধুরীর বিরুদ্ধের অভিযোগ সুসংগঠিত না হওয়ায় মামলা থেকে তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

সাজেদা চৌধুরী বার্ধক্যজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি হন ও সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় গেল ১১ সেপ্টেম্বর রোববার রাত ১১টা ৪০ মিনিটে তিনি সেখানেই মৃত্যুবরণ করেন।

তিনি ছিলেন একজন দেশপ্রেমীক, দেশে ও সমাজের প্রতি রয়েছে তাঁর অনেক অবদান। তাই জাতি তাঁকে সবসময় স্বরণ করবে। তাঁর মৃত্যুতে ফরিদপুর-২ নগরকান্দা, সালথা, সদরপুর ও কৃষ্ণপুর ইউনিয়ন বাসীর অপূরণীয় ক্ষতি হলো। তথ্য সংগ্রহ উইকিপিডিয়া, এম রানা


শেয়ারঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় অন্যান্য সংবাদ

বেনাপোলে রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় উদোর পিন্ডি বুদোর ঘাড়ে বেনাপোল প্রতিনিধিঃ বেনাপোলে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে সাবেক মেম্বার ও বেনাপোল পৌর সভার কাউন্সিলর পদপ্রার্থী সুলতান আহমেদ বাবু তরুন আওয়ামী নেতা কামাল হোসেনকে ঘিরে দৈনিক প্রতিদিনের কথা নামে একটি পত্রিকায় মিথ্যা বানোয়াট ও ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সুলতান আহমেদ বাবু একজন সামাজিক ও রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্ব। তার এলাকায় যথেষ্ট সুনাম রয়েছে। ইতিমধ্যে সে ফেনসিডিল ও গাজা ব্যবসায়িদের আটক করে নিজ দায়িত্বে বিজিবির কাছে হস্তান্তর করেছে। তাকে ও কামাল এবং জামাল কে জড়িয়ে স্বর্ণ চোরাচালানের মত ঘটনার সাথে জড়িত করায় এলাকায় ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। এলাকার সাধারন জনগন বলেন বাবু এবং কামাল বেনাপোল পৌরসভার আলাদা আলাদা ওয়র্ডের দুই জন জনপ্রিয় কাউন্সিলার পদপ্রার্থী হিসাবে ইতিমধ্যে আলোচিত হয়েছে। তাদের উভয়ের নিকটতম কোন প্রার্থী নেই বলেও তেমন কোন প্রচার প্রচারণা নেই। এসব দেখে এক শ্রেণীর স্বার্থম্বেষী মহল মিথ্যা বানোয়াট তথ্য প্রদান করে সমাজে তাদের হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য এরকম সংবাদ প্রকাশ করেছে। সাধারন জনগনের দাবি স্বাধীন সার্বোভৌম দেশে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ না করে সত্য সংবাদ প্রকাশ করলে তাতে পত্রিকার মান ও বৃদ্ধি পায়।

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২২ Dhaka Mail 24
Developed By UNIK BD